meghna
image-6320

শুরুতে ঝড় তুললেন সাকিব আল হাসান। তাতে বড় সংগ্রহ দাঁড় করালো ফরচুন বরিশাল। জবাব দিতে নেমে আক্রমণাত্মক খেললো সিলেট সিক্সার্সও।

meghna

জাকির হাসান, মুশফিকুর রহিম ও তাওহিদ হৃদয়ের ব্যাটিং তাণ্ডবে জয়ে শুরু সিলেট স্টাইকার্সের। ফরচুন বরিশালের বিপক্ষে ১৯৫ রানের বিশাল টার্গেট তাড়া করে ৬ উইকেটের জয় পায় সিলেট।

এই জয়ে বিপিএল নবম আসর শুরু মাশারাফি বিন মুর্তজার নেতৃত্বাধীন দলটির।

শনিবার (৭ জানুয়ারি) মিরপুর শেরেবাংলাদিন মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে আগে ব্যাট করে বরিশাল। প্রথমে ব্যাটিংয়ে নেমে রীতিমতো তাণ্ডব চালিয়ে ৭.২ ওভারে স্কোর বোর্ডে ৬৭ রান জমা করেন দুই ওপেনার এনামুল হক বিজয় ও চাতুরঙ্গা ডি সিলভা।

এরপর সাকিব আল হাসানের ৩২ বলের ৬৭ রানের ঝড়ো ইনিংসে ৬৭ রান করেন সাকিব। ২৫ বলে ৩৬ রান করেন ওপেনার চাতুরঙ্গা ডি সিলভা। ২১ বলে ২৯ রান করেন এনামুল হক বিজয়।

সাকিব-ডি সিলভা আর বিজয়ের কল্যাণে ৭ উইকেট হারিয়ে ১৯৪ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়ে বরিশাল।

টার্গেট তাড়া করতে নেমে ইনিংসের দ্বিতীয় বলেই উইকেট হারান ওপেনার কলিন একরামন। ওয়ান ডাউনে ব্যাটিংয়ে নামা তাওহিদ হৃদয়ের সঙ্গে ১০১ রানের জুটি গড়েন ওপেনার নাজমুল হোসেন শান্ত। এই জুটিই মূলত জয়ের পথ মসৃণ করে দেয় সিলেটের। ম্যাচ থেকে প্রায় ছিটকে যায় বরিশাল।

৪০ বলে ৪৮ করে আউট হন শান্ত। ৩৪ বলে ৫৫ রানের বিধ্বংসী ইনিংস খেলেন হৃদয়। এরপর জাকির হাসানও খেলেন এক টর্নেডো ইনিংস। ১৮ বলে ৪৩ রানের ইনিংসে জাকির মারেন চারটি চার ও তিনটি ছক্কা। শেষ দিকে মুশফিকুর রহিমের ১১ বলে ২৩ এবং থিসারা পেরেরার ৯ বলে ২০ রানের ক্যামিও ইনিংসে ভর করে দারুণ জয় তুলে নেয় সিলেট। ম্যাচ সেরা হন তৌহিদ হৃদয়।

বরিশালের পতন হওয়া চার উইকেটের দুটি হয়েছে রান আউট। অন্য দুটি উইকেট নেন ডি সিলভা ও করিম জানাত। সাকিব ৪ ওভারে ৩১ রান দিয়েও উইকেট পাননি। মিরাজ তো ছিলেন বেশি খরুচে, ৩ ওভারে দেন ৩৫ রান।

বিপরীতে সিলেটের বোলারদের মধ্যে সর্বোচ্চ তিন উইকেট নেন মাশরাফি। তিনি অবশ্য খরচ করেন ৪৮ রান। এছাড়া একটি করে উইকেট পেয়েছেন ইমাদ ওয়াসিম, রেজাউর রহমান রাজা ও পেরেরা।

এবারের বিপিএলে এ নিয়ে দুই ম্যাচের দুটিতেই জিতল সিলেট স্ট্রাইকার্স। বিপরীতে হার দিয়ে মিশন শুরু হলো সাকিব-মিরাজদের বরিশালের।

meghna

আরও পড়ুন


meghna